সাতক্ষীরার ঘোষপাড়ায় অবৈধভাবে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে চানাচুর, চিমনির ধোঁয়ায় হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য

অনলাইন ডেস্ক★★
সাতক্ষীরা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের ঘোষপাড়ায় থেকে উৎপাদিত অস্বাস্থ্যকর চানাচুর প্রতিদিন বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হচ্ছে। নিম্নমানের ডালডা আর পোড়া তেল দিয়ে ভাজা চানাচুর এবং শিশুখাদ্যে মান নিয়ন্ত্রণে বিএসটিআইয়ের কোনো অনুমোদন নেই।

কোনো কোনো সময় সরকারি কর্মকর্তারা এসব কারখানায় পরিদর্শনে গেলেও মালিকের সঙ্গে দেখা করে ফিরে যান বলে এসব কারখানার কয়েকজন শ্রমিকের ভাষ্য।

শনিবার সরেজমিনে পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের ঘোষপাড়ায় ‘ইভা চানাচুর’ কারখানায় গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে।

ইভা চানাচুর কারখানায় কাপড়ের রং মিশিয়ে তৈরি চানাচুর মেঝেতে ফেলে তার উপর দিয়ে হাঁটাচলা করছে শ্রমিকরা। এসব ময়লা চানাচুর পরে প্যাকেটজাত করে বাজারে সরবরাহ করা হচ্ছে।

ইভা চানাচুর ফ্যাক্টরির মালিক আব্দুস সামাদ বিএসটিআই এর অনুমোদনের কথা বললেও কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। এছাড়া নোংরা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে চানাচুর তৈরির কথা তিনি অকপটে অস্বীকারও করেন। এবং বলেন আপনি যা পারেন, করেন। আমার কেউ কিছু করতে পারবে না।

এলাকার এক অধিবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায় যে, তিনি বৃহস্পতিবার অনেক সাংবাদিককে টাকা দিয়েছেন, যাতে বিষয়টা গোপন থাকে।

সাতক্ষীরা পৌরসভায় এই অনুমোদনবিহীন কারখানাটির বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে সাতক্ষীরা পৌরসভা, সদর থানা, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দাখিলের প্রক্রিয়া চলছে।

এ প্রসঙ্গে একজন সিনিয়র মেডিকেল অফিসার বলেন, এধরনের খাবার খেলে ফুড পয়জনিং, ডায়রিয়া, পেটের পীড়াসহ মারাত্মক অসুখ হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই এধরনের নোংরা ও অস্বাসস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি খাবার না খাওয়াই ভালো।

এছাড়াও চানাচুর তৈরির জন্য ব্যবহৃত চিমনির ধোঁয়ায় এলাকায় শিশু ও বৃদ্ধদের দারুন শ্বাসকষ্ট ও বিভিন্ন রোগ দেখা দিচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, এই ফ্যাক্টরি ইতিপূর্বে পূরাতন সাতক্ষীরা আনসার ক্যাম্পের পাশে ছিল। এলাকাবাসীর তীব্র প্রতিবাদের পর সেখান থেকে এখানে স্থানান্তরিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *